home isolation requiered new notice decleared from central if infected by corona

করোনা হলেই হোম আইসোলেশন , কেন্দ্রের নয়া নির্দেশিকা তাজ্জব দেশ

ভাস্বতী দাশ, প্রতিনিধি – করোনা সংক্রমণের জেরে গোটা দেশজুড়ে চলছে লকডাউন | আর এর মধ্যেই কেন্দ্রের নতুন নির্দেশিকায় জোর সমালোচনা চলছে |
আইসিএম আরের নির্দেশ অনুযায়ী করোনা সংক্রমণের কোনও উপসর্গ দেখা দিলেই যেতে হবে হাসপাতালে | সেখানেই আইসোলেশনে থাকতে হবে রোগীকে পাশাপাশি তার পরিবারকে থাকতে হবে কোয়ারেন্টাইনে | দেশে ক্রমাগতই রোগীর সংখ্যা বাড়ছে ,হাসপাতাল গুলি নাজেহাল হয়ে উঠছে গোটা পরিস্থিতি সামাল দিতে ,আর এই জন্য নতুন নির্দেশিকা আনলো কেন্দ্র , আর তাতেই তাজ্জব গোটা দেশ |

দেশে করোনা সংক্রমণের হার যে হারে বাড়ছে ,তাতে আগামী দশ দিনে দেশে প্রায় ৫০ হাজার ব্যক্তি করোনায় আক্রান্ত হয়ে যাবেন বলে মনে করা হচ্ছে |কিন্তু এদের অনেকের ক্ষেত্রেই উপসর্গ খুব কম। এইসব বিষয়ে হোম আইসোলেশন করা যেতে পারে, বলে সোমবার জানাল কেন্দ্র |
এর আগে  মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সোমবার সাংবাদিক সম্মেলনে জানান, করোনা রোগীর সংস্পর্শে আসা ব্যক্তিদের হোম আইসোলেশন চলতে পারে | সেক্ষেত্রে মমতার এই ভাবনাকে কাজে লাগিয়েই কেন্দ্রের এই নতুন নীতি বলে মনে করা হচ্ছে |

মাইল্ড সিম্পটম বা প্রি-সিম্পটোম্যাটিক হলে তাদের বাড়িতেই আইসোলেট করে দেওয়া যেতে পারে | যদি তাদের বাড়িতে যথেষ্ট জায়গা থাকে যেখানে অন্যদের সংস্পর্শে আসবে না সেই ব্যক্তি, তাহলেই এরকম হোম কোয়ারেন্টাইন করা যেতে পারে |তবে প্রাথমিক ভাবে তাদের হাসপাতালে যেতে হবে| চিকিৎসক বললেই তবেই সেল্ফ আইসোলেশনে থাকার অনুমতি মিলবে|

তবে কেন্দ্রের মতে ,রোগীদের নিয়মিত নিজেদের স্বাস্থ্যের হাল জানাতে হবে জেলা সার্ভিলেন্স আধিকারিককে |রোগীকে সেল্ফ-আইসোলেশনের একটি আন্ডারটেকিংও সই করতে হবে এবং হোম কোয়ারান্টাইনের সব নিয়ম মেনে চলতে হবে | পাশাপাশি আরোগ্য সেতু অ্যাপটি অন রাখতে হবে সেই রোগীকে | তবে শরীর যদি খারাপ হয় সেই ক্ষেত্রে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হবে তাকে |